অতো হিসাবের সময় নাই, বাংলাদেশের জয় চাই!

এবং ডেস্ক : মেট্রো রেলের নির্মাণ কাজ চলছে। প্রলম্বিত উন্নয়নের বিড়ম্বনায় মিরপুরকে তাই ‘বধ্যভূমি’ বলে ডাকেন পরিচিত বেশ কয়েকজন। মিরপুরের নাম শুনলেই বলেন, ‘ওখানে কি এখনও মানুষ থাকে। আর ওটা তো ঢাকার বাইরে এখন।’ ব্যঙ্গ করে বললেও কথাগুলো কিন্তু ফেলে দেবার মতো নয়!

মিরপুর ১১ নম্বর। কম টাকায় থাকা যায় বলে ঢাকায় এটা আমার মতো অনেকেরই অস্থায়ী আশ্রয়কেন্দ্র! একেবারে বাধ্য না মেট্রো রেল প্রকল্পের ধারেকাছেও যারা ঘেষেন না তাদের জন্য অবশ্য ডিওএইচএস ঘোরার জন্য বেশ ভালো জায়গা। সারদিন মরুভূমির লু বাতাসের অস্বস্তি কাটাতে সন্ধ্যাটা কাটলো সেখানেই।

রাস্তার পাশের চায়ের দোকান যাদের অসম্ভব টানে আমিও তাদের একজন। সাগুফতার পাশে এক দোকান। তাতে কলেজ পড়ুয়া কয়েক তরুণী। আলোচনার বিষয়বস্তু ক্রিকেট বিশ্বকাপ-২০১৯।

-জানিস ইন্ডিয়া কাল তো হারতে হারতে বাঁচছে।

-আম্পায়ার হারামজাদাটা তো আউট দেওয়ার জন্য আঙুল খাড়া করে রাখছিল। ভাগ্যিস রিভিউ (ডিআরএস) ছিল।

-নবী ভালোই খেলতেছিল বুঝছস, ওগো বাকি ব্যাটসম্যানরা জাতের না।

-কাইল তো আফগানিস্তানের সাথে বাংলাদেশের খেলা। দোস্ত ক তো, বাংলাদেশ কি সেমিফাইনালে যাইবো?

-হ, যাইবো তয় হিসাব আছে!

-অতো হিসাবের সময় নাই, কাইল বাংলাদেশের জয় চাই, ব্যস!

অবাক হয়ে শুনছিলাম টাইগারদের নারী সমর্থকদের কথা। ওদের বয়সে আমরা যখন পড়তাম তখন গ্রামের নারী ক্রিকেট কি সেটাই বুঝতো না। টিভিতে ক্রিকেট চললেই মা-চাচীরা বিরক্ত হয়ে বলতো, কি হাবিজাবি এক খেলা। বুঝিও না, শুনিও না। যুগের ব্যবধানে নারীরাও এখন ক্রিকেটের বড় ভক্ত। ক্রিকেট মাঠে ক্যামেরায় নারীদের আবেদনময়ী ছবি দেখে অবশ্য বিষয়টা বোঝার উপায় থাকে না। এটাকেই হয়তো প্রগতি বলে।

ভাবছিলাম, মেয়েগুলোর সাথে কথা বলবো। আলোচনাটা কেবল জমে উঠেছে এমন সময় বেরসিক বাসটা চলে আসায় নিজের ইচ্ছাকে নিবৃত্ত কতে হলো।

সাউদাম্পটনে সোমবার আফগানিস্তানের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। শেষ চারে যেতে হলে ম্যাচটা জেতার কোনোই বিকল্প নেই। টাইগারদের তো জিততে হবেই সেই সাথে পয়েন্ট টেবিলের উপরে থাকা দলগুলোর হারও কামনা করতে হবে, বিশেষ করে ইংল্যান্ডের হারের জন্য প্রার্থনায় বসতে হবে টাইগারভক্তদের।

বাংলাদেশের আর তিনটি ম্যাচ বাকি রয়েছে। তিনটি ম্যাচই হবে এশীয় দলগুলোর বিপক্ষে। আফগানিস্তানের পর টাইগারদের প্রতিপক্ষ ভারত, শেষ ম্যাচে বাংলাদেশ খেলবে পাকিস্তানের বিপক্ষে। যে কয়েকটি সমীকরণের ওপর বাংলাদেশের সেমিফাইনাল ভাগ্য নির্ভর করছে তার একটি হলো এই তিনটি ম্যাচেই জিততে হবে বাংলাদেশকে। তবে সমর্থকদের অতো হিসাবের দরকার নাই। টাইগাররা সেমিতে যাক বা না যাক এই তিনটি ম্যাচের সবকটিতেই তামিম-সাকিবদের জয় চান তারা।

আর বাকিটা? মানির মান নাকি আল্লাহই রাখেন। আমাদেরটাও রাখবেন! অতো চিন্তা করে কী হবে!

ট্যাগ্স
আরো দেখুন

এই সম্মন্ধীয় সংবাদ

Leave a Reply

Close