ভারতকে রুখে সেমিতে বাংলাদেশ

এবং ডেস্ক : ভারতের ফরমেশন ছিল ৪-১-৪-১; বাংলাদেশের ৩-৪-৩। এক দল আক্রমণাত্মক, অন্যটি রক্ষণাত্মক। ফরমেশনকে যদি দু’দলের লক্ষ্য ধরা হয়, তবে জিতেছে শেষ পর্যন্ত বাংলাদেশই। ভারতের গোল প্রচেষ্টা রুখে দিয়ে ম্যাচ শেষ করেছে ০-০ স্কোরলাইনে।

সোমবার সাফ অনূর্ধ্ব-১৮ চ্যাম্পিয়নশিপের এই ড্রর মাধ্যমে সবার আগে সেমিফাইনাল নিশ্চিত করেছেন বাংলাদেশের যুবারা। ভারতের একটি ম্যাচ এখনও বাকি থাকায় সেমির প্রতিপক্ষ জানা যাবে ২৫ সেপ্টেম্বর।

কাঠমান্ডুর আর্মড পুলিশ ফোর্সেস মাঠে অনুষ্ঠিত ‘বি’ গ্রুপের ম্যাচটিতে বাংলাদেশের লক্ষ্যই ছিল ড্র তুলে সেমিতে জায়গা রাখা। প্রতিপক্ষ ভারত অনূর্ধ্ব-১৮ দলই ছিল ফেভারিট। ম্যাচের আগের দিনই তিন পয়েন্টকে প্রধান লক্ষ্য ঘোষণা দিয়েছিলেন দলটির কোচ ফ্লয়েড পিন্টো। সে অনুসারে দলটির খেলায়ও ছিল আক্রমণাত্মক মনোভাব। বিপরীতে বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৮ দলের কোচ অ্যান্ড্রু টার্নার নেন রক্ষণ এবং প্রতি-আক্রমণের কৌশল। শুরু থেকেই ‘হাই প্রেসিং’ ফুটবলে বাংলাদেশের রক্ষণকে তটস্থ করে তোলে ভারত। তবে সুযোগ তৈরি হয় বাংলাদেশেরও। ৩৪তম মিনিটে বাঁ দিক থেকে ফয়সাল আহমেদ ফাহিম ক্রস বাড়িয়েছিলেন ভারতের গোলমুখে। তবে কাছাকাছি থাকা মারাজ হোসেন বলে পা লাগাতে পারেননি। এর দুই মিনিট বাদে অল্পের জন্য গোল হজম থেকে বেঁচে যায় বাংলাদেশ। সুমিত রাঠির নেওয়া বারের সামান্য ওপর দিয়ে চলে যায়।

গোলশূন্য প্রথমার্ধের মতো দ্বিতীয়ার্ধেও বেশ আক্রমণাত্মক হয়ে খেলেন ভারতের যুবারা। বাংলাদেশ বেশি ব্যস্ত ছিল রক্ষণ সামলানোর কাজে। এ অর্ধে বাংলাদেশের সেরা সুযোগটি আসে ৬৯তম মিনিটে। রাহাদ মিয়ার লম্বা থ্রো ইনে ডি বক্সের মধ্যে থেকে আমির হোসেন বাপ্পি হেড নিলে সেটি দারুণ ক্ষিপ্রতায় প্রতিহত করেন ভারতের গোলরক্ষক। ম্যাচের বাকিটা সময় নিজেদের দুর্গ অক্ষত রেখে এক পয়েন্ট নিয়ে মাঠ ছাড়ে বাংলাদেশ।

ম্যাচ শেষে বাংলাদেশের জমাট রক্ষণকেই নিজেদের জয়বঞ্চিত হওয়ার কারণ বলে উল্লেখ করেছেন ভারত কোচ পিন্টো, ‘খুব কঠিন একটা ম্যাচ ছিল। বাংলাদেশ ১০ জন নিয়ে রক্ষণ সামলেছে। ম্যাচ থেকে ১ পয়েন্ট পেয়েছি, এটিই যা সান্ত্বনা।’

ভারতের সঙ্গে ড্র থেকে ১ আর প্রথম ম্যাচে শ্রীলংকাকে ৩-০ ব্যবধানে হারানোর ৩ মিলিয়ে বাংলাদেশের পয়েন্ট এখন ৪। এক ম্যাচ কম খেলা শ্রীলংকার ০, ভারতের ১।

মঙ্গলবার গ্রুপ পর্বের শেষ খেলায় শ্রীলংকার সঙ্গে ড্র করলেই সেমিফাইনালে উঠে যাবে ভারত, হারলে উঠবে শ্রীলংকা। ওদিকে ‘এ’ গ্রুপ থেকে সেমি নিশ্চিত করেছে ভুটান। দ্বিতীয় দল হিসেবে সেমিতে ওঠার সম্ভাবনা মালদ্বীপের, সেক্ষেত্রে মঙ্গলবার ভুটানের কাছে ৩ গোলের কম ব্যবধানে হারতে হবে। তখন বাদ পড়ে যাবে নেপাল।

মালদ্বীপের সঙ্গে ড্র করলেও স্বাগতিকরা ভুটানের কাছে ০-৩-এ হেরে গেছে। দুই বছর আগে ভুটানে আয়োজিত সাফ অনূর্ধ্ব-১৮ দ্বিতীয় আসরে বাংলাদেশকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিলেন নেপালি যুবারা। এবারের ফাইনাল হওয়ার কথা রয়েছে ২৯ সেপ্টেম্বর।

ট্যাগ্স
আরো দেখুন

এই সম্মন্ধীয় সংবাদ

Leave a Reply

Close